বাংলাদেশের মানচিত্রে আন্তর্জাতিক প্রচলিত প্রতীক চিহ্নের ব্যবহার। ১০ম শ্রেণি ভূগোল ও পরিবেশ

দশম শ্রেণীর 2022 শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীদের তৃতীয় সপ্তাহের জন্য নির্ধারিত ভূগোল ও পরিবেশ অ্যাসাইনমেন্ট নির্ভুল এবং পূর্ণাঙ্গ উত্তর প্রকাশ করা হলো। যার প্রশ্ন আমরা ইতোমধ্যে আমাদের ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রকাশ করেছে। আপনি কি দশম শ্রেণীর 2022 শিক্ষাবর্ষের মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থী? তাহলে এই পোষ্ট টি আপনার জন্য। অথবা আপনি কি 2022 শিক্ষাবর্ষের মানবিক বিভাগের তৃতীয় সপ্তাহের ভূগোল ও পরিবেশ অ্যাসাইনমেন্টের নির্ভুল এবং পূর্ণাঙ্গ উত্তর খুঁজছেন?

আপনি সঠিক জায়গায় এসেছেন। কেননা আমরা সবার আগে সর্ব প্রথম দশম শ্রেণীর সকল সপ্তাহের সকল বিষয়ের অ্যাসাইনমেন্টের ব্যাখ্যাসহ প্রশ্ন এবং এর নির্ভুল ও পূর্ণাঙ্গ উত্তর প্রকাশ করে থাকি। ফলে শিক্ষার্থীরা খুব সহজেই আমাদের ওয়েবসাইট থেকে সকল অ্যাসাইনমেন্ট এর প্রশ্ন এবং উত্তর ডাউনলোড করে নিতে পারে। দশম শ্রেণীর মানবিক বিভাগের জন্য নির্ধারিত তৃতীয় সপ্তাহের ভূগোল ও পরিবেশ অ্যাসাইনমেন্ট এর পূর্ণাঙ্গ উত্তর পেতে নিচের অংশ ভালভাবে পড়ুন।

দশম শ্রেণি তৃতীয় সপ্তাহ ভূগোল ও পরিবেশ এর প্রশ্ন

শিক্ষার্থীদের বোঝার সুবিধার্থে উত্তরের সাথে সাথে আমরা পুনরায় দশম শ্রেণি তৃতীয় সপ্তাহের ভূগোল ও পরিবেশ অ্যাসাইনমেন্ট এর প্রশ্ন তুলে ধরেছি। ফলে উপরের প্রশ্ন দেখে প্রশ্ন নিচের অংশের উত্তর ডাউনলোড করে নিন। এতে অ্যাসাইনমেন্টের ভুল হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। নিচে প্রশ্ন এবং তার পরবর্তীতে উত্তর দেওয়া হল।

শিরোনামঃ

বাংলাদেশের মানচিত্রে আন্তর্জাতিক প্রচলিত প্রতীক চিহ্নের ব্যবহার।

শিখনফলঃ

  • মানচিত্রের ধারণা,গুরুত্ব ও ব্যবহার ব্যাখ্যা করতে পারবে
  • মানচিত্রে তথ্য উপাত্ত উপস্থাপনের নিয়মাবলি বর্ণনা করতে পারবে এবং ব্যাবহারিক প্রয়োগ করতে পারবে।

নির্দেশনাঃ

  1. মানচিলের ধারণা ব্যাখ্যা করতে হবে।
  2. ভূসংস্থানিক মানচিত্রের ধারণা ও বৈশিষ্ট্য ব্যাখ্যা করতে হবে।
  3. বাংলাদেশের মানচিত্র অঙ্কন করে কমপক্ষে ১৫ ধরনের আন্তর্জাতিক প্রচলিত প্রতীক চিহ্নের ব্যবহার দেখাতে হবে।

দশম শ্রেণি তৃতীয় সপ্তাহ ভূগোল ও পরিবেশ অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর ২০২২

প্রিয় দশম শ্রেণীর 2022 শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা। চলন দেরি না করে আপনাদের তৃতীয় সপ্তাহের জন্য নির্ধারিত ভূগোল ও পরিবেশ অ্যাসাইনমেন্ট এর পূর্ণাঙ্গ উত্তর দেখে নেয়া যাক। অ্যাসাইনমেন্টে ভালো নম্বর পাওয়ার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত নমুনা উত্তর এর পাশাপাশি আপনার নিজস্ব মেধা দিয়ে এর সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ করা হলো।

উত্তরঃ

শিরােনামঃ “বাংলাদেশের মানচিত্র আন্তর্জাতিক প্রচলিত প্রতীক চিহ্নের ব্যবহার

(‘ক’ নং প্রশ্নের উত্তর ) মানচিত্র ধারণাঃ

পৃথিবীর মহাদেশ এবং মহাসাগরসমূহের বিভিন্ন অংশের সীমা, আয়তন, অবস্থান এবং তাদের মধ্যকার পারস্পরিক দূরত্ব বুঝানাের জন্য নির্দিষ্ট মাপনীর (Scale) প্রেক্ষিতে সমগ্র ভূপৃষ্ঠের অংশবিশেষের যে নকশা প্রস্তুত করা হয়, তাকে মানচিত্র বলে। বিভিন্ন প্রকার সংকেত এবং রং (কালার) ব্যবহারের মাধ্যমে ভূ-পৃষ্ঠের বিভিন্ন স্থানগুলাের পারস্পরিক দূর, আয়তন ও সীমা ঠিক রেখে প্রাকৃতিক বিভিন্ন প্রপক্ষ এবং অর্থনৈতিক বিষয়াদি শিল্প-কারখানা এবং নগর বিষয়ক বিষয়াদী প্রভৃতি মানচিত্রে বিভিন্ন সংকেতের মাধ্যমে দেখানাে হয়।

বিশেষ মান ভিত্তিক এ চিত্র অঙ্কিত হয় বলে একে মানচিত্র বলে। মানচিত্র অঙ্কনের জন্য সর্বপ্রথম প্রয়ােজন স্কেল ও অভিক্ষেপ। ভূগােলবিদদের মতে- “প্রচলিত সাংকেতিক চিহ্ন, নির্দিষ্ট স্কেল ও অভিক্ষেপের সাহায্যে সমতল কাগজের উপর অঙ্কিত সমগ্র পৃথিবী বা এর অংশবিশেষের প্রতিরূপকে মানচিত্র বলে”। স্কেল অনুসারে মানচিত্র দুই প্রকার।

যথাঃ

১। ক্ষুদ্র স্কেলের মানচিত্র: যখন ব্যাপক এলাকাকে ছােট করে কাগজে অঙ্কন করা হয় তখন তাকে ক্ষুদ্র স্কেলের মানচিত্র বলে। এ ক্ষেত্রে সমগ্র পৃথিবী বা মহাদেশ বা দেশের বড় এলাকাকে একটি ছােট কাগজে দেখানাে হয়। ভূ-চিত্রাবলীর মানচিত্র ও দেওয়াল মানচিত্র ক্ষুদ্র স্কেলের মানচিত্র।

২. বৃহৎ স্কেলের মানচিত্র: ক্ষুদ্র এলাকাকে বৃহৎ স্কেলে অঙ্কন করে যখন অনেক বড় করে দেখান হয়, তখন তাকে বৃহৎ স্কেলের মানচিত্র বলে। যেমন, ১”=১৬ মাইল; ১৬” =১মাইল। যেমনঃ মৌজা মানচিত্র বা ক্যাডাস্ট্রাল মানচিত্র, ভূ-সংস্থানিক মানচিত্র বৃহৎ স্কেলের মানচিত্র।

(খু নং প্রশ্নের উত্তর) ভূসংস্থানিক মানচিত্রের ধারণাঃ

ভূসংস্থানিক- এর আরেক নাম হচ্ছে স্থানীয় বৈচিত্র্যসূচক মানচিত্র। এই মানচিত্রগুলাে প্রকৃত জরিপকার্যের মাধ্যমে প্রস্তুত। করা হয়। সাধারণত এর মধ্যে প্রাকৃতিক ও সাংস্কৃতিক দুই ধরনের উপাদান দেখতে পাওয়া যায়। এই ধরনের মানচিত্রের স্কেল একেবারে ছােট না হলেও মৌজা মানচিত্রের মতাে। বৃহৎও নয়। এই মানচিত্রগুলােতে কিন্তু জমির সীমানা দেখানাে হয় না।

ভূ-প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য হিসেবে পাহাড়, মালভূমি, সমভূমি, নদী, উপত্যকা, হ্রদ প্রভৃতি দেখানাে হয়। অন্যদিকে সাংস্কৃতিক বৈচিত্র্য হিসেবে রেলপথ, হাটবাজার, পােস্ট অফিস, সরকারি অফিস, খেলার মাঠ, মসজিদ, মন্দির প্রভৃতি নিখুঁতভাবে দেখানাে হয়। বর্তমান যুগে বিমান থেকে ছবি তােলার মাধ্যমে এই মানচিত্রের নবযুগের সূচনা হয়। এই মানচিত্রের স্কেল ১:২০,০০০ হলে ভালভাবে বৈশিষ্ট্যগুলাে প্রকাশ পায়। বিভিন্ন দেশ বিভিন্ন স্কেলে এই মানচিত্র তৈরি করে।

আরও দেখুনঃ

১০ম শ্রেণি [৩য় সপ্তাহ] বাংলা এসাইনমেন্ট উত্তর 2022। Class 10 Bangla Assignment

Leave a Reply

Your email address will not be published.