মহাবিশ্বে আমাদের পৃথিবী একটি বিস্ময়। ৯ম শ্রেণি [৩য় সপ্তাহ] ভূগোল ও পরিবেশ

৯ম শ্রেণির ভূগোল ও পরিবেশ এসাইনমেন্ট এর নির্ভুল এবং পূর্ণাঙ্গ উত্তর প্রকাশ করা হলো। প্রিয়  ৯ম শ্রেণীর 2022 শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা। আপনারা হয়তো ইতিমধ্যে জেনে থাকবেন যে ৯ম শ্রেণীর ৩য় সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশিত হয়েছে। ভূগোল ও পরিবেশদেশ মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ইতোমধ্যে ৯ম শ্রেণীর ৩য় সপ্তাহের জন্য নির্ধারিত ভূগোল ও পরিবেশ অ্যাসাইনমেন্ট এর প্রশ্ন তাদের অফিসিয়াল ওয়েবসাইটের প্রকাশ করেছে। ফলে শিক্ষার্থীদের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে অ্যাসাইনমেন্ট তৈরি করে নিজ নিজ বিদ্যালয়ে জমা প্রদান করা বাধ্যতামূলক।

তাই দেরি না করে চলুন ৯ম শ্রেণীর ৩য় সপ্তাহের ভূগোল ও পরিবেশ এসাইনমেন্ট এর নির্ভুল এবং পূর্ণাঙ্গ উত্তর দেখে নেয়া যাক। যার প্রশ্ন ইতোমধ্যে আমরা আমাদের ওই অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছি। আপনি যদি ৯ম শ্রেণীর 2022 শিক্ষা বর্ষের শিক্ষার্থী হয়ে থাকেন তাহলে এই পোস্টটি আপনার জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কেননা আপনি আমাদের এই পোষ্টের মাধ্যমে আপনার কাঙ্খিত ৯ম শ্রেণীর ৩য় সপ্তাহের জন্য নির্ধারিত ভূগোল ও পরিবেশ এসাইনমেন্ট এর নির্ভুল এবং পূর্ণাঙ্গ উত্তর পেয়ে যাচ্ছেন। উত্তর পেতে নিচের অংশ ভালভাবে পড়ুন।

Table of Contents

৯ম শ্রেণীর ৩য় সপ্তাহ ভূগোল ও পরিবেশ এসাইনমেন্ট উত্তর 2022

আপনি কি ৯ম শ্রেণীর 2022 শিক্ষা বর্ষের শিক্ষার্থী? ৯ম শ্রেণীর ৩য় সপ্তাহের ভূগোল ও পরিবেশ এসাইনমেন্ট নির্ভুল এবং পূর্ণাঙ্গ উত্তর চাচ্ছেন? তাহলে চলুন দেরী না করে ৯ম শ্রেণীর ৩য় সপ্তাহের ভূগোল ও পরিবেশ এসাইনমেন্ট এর পূর্ণাঙ্গ উত্তর দেখে নেয়া যাক। যেহেতু আমরা আমাদের ওয়েবসাইটের বিশেষজ্ঞ শিক্ষকমন্ডলী ধরার সপ্তাহ শ্রেণির ভূগোল ও পরিবেশ এসাইনমেন্ট এর পূর্ণাঙ্গ উত্তর তৈরি করেছি। তাই শিক্ষার্থীরা আমাদের ওয়েবসাইট থেকে উত্তর ডাউনলোড করে সর্বোচ্চ নম্বর পেয়ে যেতে পারেন।

উত্তরঃ

ক) জ্যোতিষ্ক মন্ডলীর বর্ণনাঃ

মহাশূন্যে অবস্থিত বস্তুসমূহকেই জ্যোতিষ্ক বা স্বর্গীয় বস্তু বলা হয়ে থাকে। পৃথিবী ছাড়া অন্য সব বস্তুই এর অন্তর্ভুক্ত। অন্যদিকে পৃথিবী স, মহাবিশ্বের যাবতীয় বস্তুকে জ্যোতির্বৈজ্ঞানিক বস্তু বলা হয়। আধুনিক বিজ্ঞান (জ্যোতির্বিজ্ঞান) স্বর্গীয় বস্তুসমূহের বৈশিষ্ট্য ও অস্তিত্ব সম্বন্ধে বিস্তর তথ্য সংগ্রহ করতে সমর্থ হয়েছে। এই বস্তুগুলাের আবিষ্কার প্রতিনিয়তই চলছে এবং ভবিষ্যতেও চলবে। এমনকি অনেক বস্তু রয়েছে যাদের আদৌ কোন অস্তিত্ব নেই বলে পরবর্তীকালে, প্রমাণিত হয়েছে। প্রক্রিয়া ভবিষ্যতেও চলতে থাকবে। আর এভাবেই মানুষ তার সমগ্র মহাবিশ্বকে তার বিচরণস্থল হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে সমর্থ হবে।

খ) সৌরজগৎঃ

সৌরজগৎ হল সূর্য ও প্রত্যক্ষ বা পরােক্ষভাবে সূর্যপ্রদক্ষিণকারী তথা প্রতি অভিকর্ষজ টানে আবদ্ধ মহাজাগতিক বস্তুগুলিকে নিয়ে গড়ে একটি ব্যবস্থা। সৌরজগতে প্রত্যক্ষভাবে সূর্য-প্রদক্ষিণকারী বস্তুগুলির মধ্যে আটটি গ্রহই বৃহত্তম। অন্য ক্ষুদ্রতর বস্তুগুলির মধ্যে রয়েছে বামন গ্রহ ও সৌরজগতের ক্ষুদ্র বস্তুসমূহ।
নিম্নে ৮টি গ্রহের বর্ণনা করা হলােঃ
বুধঃ বুধ গ্রহ সূর্যের সবচেয়ে কাছে এবং এটি সৌরজগতের ক্ষুদ্রতম গ্রহ। এর কোন প্রাকৃতিক উপগ্রহ নেই। সংঘর্ষ খাদ ছাড়া এর একমাত্র জানা ভৌগােলিক ফিচার হচ্ছে লতিযুক্ত রিজ বা rupel ইতিহাসের প্রথম দিকে যখন গ্রহের সংকোচন চলছিল তখন এগুলাে সৃষ্টি হয়েছিল বলে ধারণা করা হয়। এগুলাে সৃষ্টি হয়েছিল বলে ধারণা করা হয়।
শুক্রঃ শুক্র গ্রহের আকার প্রায় পৃথিবীর সমান। এর বায়ুমণ্ডল বেশ পুরু এবং এর ভেতরের অংশে বিভিন্ন ভূতাত্বিক ক্র্যিাপ্রতিক্রিয়ার প্রমাণ পাওয়া গেছে। অবশ্য গ্রহটি পৃথিবীর তুলনায় অনেক শুষ্ক এবং এর বায়ুমণ্ডল আমাদের থেকে ৯০ গুণ বেশি। ঘন। এরও কোন প্রাকৃতিক উপগ্রহ নেই। পৃথিবী পৃথিবী সৌরজগতের ভেতরের অংশের সবচেয়ে ঘন ও বড় গ্রহ। এটিই এ অঞ্চলের একমাত্র গ্রহ যাতে বর্তমানেও ভূতাত্ত্বিক ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া চলছে। এটা আমাদের জানা একমাত্র গ্রহ যাতে ক্র্যিা-প্রতিক্রিয়া চলছে। এটা আমাদের জানা একমাত্র গ্রহ যাতে জীবনের অস্তিত্ব রয়েছে। এর তরল জলমণ্ডল সৌরজগতের ভেতরের অংশে অনন্য। এর একটি মাত্র প্রাকৃতিক উপগ্রহ আছে যার নাম চাঁদ বা ‘মুন’। সৌরজগতের অন্য কোন পার্থিব গ্রহের এত বড় উপগ্রহ নেই।
মঙ্গলঃ মঙ্গল গ্রহ পৃথিবী ও শুক্রের চেয়ে ছােট। এর একটি পাতলা বায়ুমণ্ডল আছে যা মূলত কার্বন ডাই অক্সাইড দিয়ে গঠিত। পৃষ্ঠতলে প্রচুর সংখ্যক আগ্নেয়গিরি ও ফাটল উপত্যকায় পরিপূর্ণ। – এ থেকে বােঝা যায় এর ভূতাত্বিক ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া খুব বেশি দিন আগে থেমে যায়নি। লৌহ সমৃদ্ধ মাটিতে মরিচা পড়ার কারণেই গ্রহটির রং লাল। মঙ্গলের দুটি ছােট ছােট উপগ্রহ আছে যাদের নাম ডিমােস এবং ফোবােস। বৃহস্পতি বৃহস্পতি গ্রহের ভর পৃথিবীর ৩১৮ গুণ এবং সবগুলাে বহিঃস্থ গ্রহের সম্মলিত ভরের তুলনাযও সে ২.৫ গুণ ভারী। গ্রহটি মূলত হাইড্রোজেন ও হিলিয়াম দিয়ে গঠিত। আমাদের জানামতে এই গ্রহের ৬৭টি প্রাকৃতিক উপগ্রহ আছে। চারটি বড় বড় উপগ্রহ গ্যানিমেড, ক্যালিস্টো, আইও এবং ইউরােপা অনেকটা গ্যানিমেড, ক্যালিস্টো, আইও এবং ইউরােপা অনেকটা পার্থিব গ্রহগুলাের মত।
শনিঃ শনি গ্রহ দৃষ্টিনন্দন বলযের জন্য সবার কাছেই বেশ পরিচিত। বায়ুমণ্ডলের গঠনসহ বেশ কটি দিক দিয়ে এর সাথে বৃহস্পতির সাদৃশ্য আছে। এর ভর পৃথিবীর মাত্র ৯৫ গুণ। শনির ৬২টি এ থেকে বােঝা যায় এর ভূতাত্বিক ক্রিয়া-প্রতিক্রিয়া খুব বেশি দিন আগে থেমে যায়নি। লৌহ সমৃদ্ধ মাটিতে মরিচা পড়ার কারণেই গ্রহটির রং লাল। মঙ্গলের দুটি ছােট ছােট উপগ্রহ আছে যাদের নাম ডিমােস এবং ফোবােস। বৃহস্পতি বৃহস্পতি গ্রহের ভর পৃথিবীর ৩১৮ গুণ এবং সবগুলাে বহিঃস্থ গ্রহের সম্মলিত ভরের তুলনাযও সে ২.৫ গুণ ভারী। গ্রহটি মূলত হাইড্রোজেন ও হিলিয়াম দিয়ে গঠিত। আমাদের জানামতে এই গ্রহের ৬৭টি প্রাকৃতিক উপগ্রহ আছে। চারটি বড় বড় উপগ্রহ গ্যানিমেড, ক্যালিস্টো, আইও এবং ইউরােপা অনেকটা
মূল গাঠনিক প্রতিক্রিয়া চলছে বলে। ধারণা। করা হ্য। টাইটান ও এনসেল্যাডাস উপগ্রহ দুটিতে ভূতাত্বিক ক্রিয়াপ্রতিক্র্যিা ঘটলেও সেগুলাের গাঠনিক উপাদান আসলে বরফ।
ইউরেনাসঃ
ইউরেনাসের ভর পৃথিবীর ১৪ গুণ। কিন্তু বহিঃস্থ গ্রহগুলাের মধ্যে এটিই সবচেয়ে হালকা। এই গ্রহের নিজ অক্ষের চারদিকে পরিভ্রমণ অক্ষ সূর্যের চারদিকে আবর্তন অঙ্কের প্রায় সমতলে অবস্থিত। এ কারণে সেখানে কোন ঋতু পরিবর্তন ঘটে না।
নেপচুনঃ নেপচুনের আকার ইউরেনাসের চেয়ে কম হলেও ভর তার থকে বেশি। ইউরেনাসের ভুর পৃথিবীর ১৪ গুণ আর নেপচুনের ভর ১৭ গুণ। এ কারণে নেপচুনের ঘনত্ব তুলনামূলক বেশি। এটি তুলনামূলক বেশি তাপ বিকিরণ করে তবে এই বিকিরণের পরিমাণ বৃহস্পতি বা শনির থেকে কম৷

(“গ নং প্রশ্নের উত্তর) আমাদের পৃথিবী মহাবিশ্বের বিস্ময়ঃ

পৃথিবী সূর্য থেকে দূরত্ব অনুযায়ী তৃতীয়, সর্বাপেক্ষা অধিক ঘনত্বযুক্ত এবং সৌরজগতের আটটি গ্রহের মধ্যে পঞ্চম বৃহত্তম গ্রহ। সূর্য হতে এটির দূরত্ব প্রায় ১৫ কোটি কি.মি। এটি সৌরজগতের চারটি কঠিন গ্রহের অন্যতম। পৃথিবীর অপর নাম “বিশ্ব” বা “নীলগ্রহ”।
নিম্নে এর বৈশিষ্ট্য উল্লেখ্য করা হলােঃ
  • পৃথিবী হলাে মানুষ সহ কোটি কোটি প্রজাতির আবাসস্থল। পৃথিবী এখন পর্যন্ত পাওয়া একমাত্র মহাজাগতিক স্থান যেখানে প্রাণের অস্তিত্বের কথা বিদিত।
  • পৃথিবী গঠিত হওয়ার এক বিলিয়ন বছরের মধ্যেই পৃথিবীর বুকে প্রাণের আবির্ভাব ঘটে। পৃথিবীর জীবমণ্ডল এইগ্রহের বায়ুমণ্ডল ও অন্যান্য অজৈবিকঅবস্থাগুলিতে গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন এনেছে। ফলে একদিকে যেমন বাযুজীবী জীবজগতের বংশবৃদ্ধি ঘটেছে, অন্যদিকে তেমনি ওজন স্তর গঠিত হয়েছে।
  • কক্ষপথ এই যুগে প্রাণের অস্তিত্ব রক্ষায় সহায়ক হয়েছে। মনে করা হচ্ছে, আরও ৫০ কোটি বছর পৃথিবী প্রাণধারণের সহায়ক অবস্থায় থাকবেপৃথিবী নিজ অক্ষের ৬৬.৫ ডিগ্রি কোণে হেলে রয়েছে।
  • এক বিষুবীয় বছর (৩৬৫.২৪ সৌরদিন) সময়কালের মধ্যে এই বিশ্বের বুকে ঋতুপরিবর্তন ঘটে থাকে।
  • গ্রহের খনিজ সম্পদ ও জৈব সম্পদ উভয়ই মানবজাতিরজীবনধারণের জন্য অপরিহার্য। এই গ্রহের খনিজ সম্পদ ও জৈব সম্পদ উভয়ই প্রাচুর্য রয়েছে।
  • এক বিষুবীয় বছর (৩৬৫.২৪ সৌরদিন) সময়কালের মধ্যে এই বিশ্বের বুকে ঋতুপরিবর্তন ঘটে থাকেগ্রহের খনিজ সম্পদ ও জৈব সম্পদ উভয়ই মানবজাতিরজীবনধারণের জন্য অপরিহার্য। এই গ্রহের খনিজ সম্পদ ও জৈব সম্পদ উভয়ই প্রাচুর্য রয়েছে।
পরিশেষে বলা যায়, আমাদের পৃথিবী হল মহাবিশ্বে বিস্ময়। কারণ একমাত্র পৃথিবীতেই প্রাণের অস্তিত বিদ্যমান।

আরও দেখুনঃ

৯ম শ্রেণি [৩য় সপ্তাহ] বাংলা এসাইনমেন্ট উত্তর 2022। পিডিএফ উত্তর ডাউনলোড করুন এখানে

Check Also

১০ম শ্রেণি [৩য় সপ্তাহ] ব্যবসায় উদ্যোগ এসাইনমেন্ট উত্তর 2022। পিডিএফ উত্তর ডাউনলোড করুন এখানে

আজ দশম শ্রেণির ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীদের অন্যান্য বিষয়ের পাশাপাশি ব্যবসা উদ্যোগ অ্যাসাইনমেন্ট এর প্রশ্ন …