‘প্রাচীনতম ও জনপ্রিয় ব্যবসায় সংগঠন হিসাবে একমালিকানা ব্যবসায় এখনো অপ্রতিদ্বন্দ্বী’ বক্তব্যের যথার্থতা নিরূপণ

এসএসসি 2021 সালের পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী শিক্ষা বিভাগের সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্টের নির্ভুল অপূর্ণাঙ্গ উত্তর প্রকাশ। যার প্রশ্ন ইতোমধ্যে আমরা আমাদের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করেছি। শিক্ষার্থীদের বোঝার সুবিধার্থে আমরা অত্যন্ত সহজ সরল সাবলীল ভাষায় অ্যাসাইনমেন্টের উত্তর তৈরি করেছি। ফলে শিক্ষার্থীরা খুব সহজেই আমাদের সাইট থেকে এসএসসি 2021 সালের ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের অষ্টম সপ্তাহের ব্যবসায় উদ্যোগ অ্যাসাইনমেন্টের উত্তর সংগ্রহ করে এসাইনমেন্ট তৈরি করে নিতে পারবেন

এসএসসি 2021 ব্যবসায় উদ্যোগ ৮ম সপ্তাহ এসাইনমেন্ট উত্তর

প্রিয় এসএসসি 2021 শিক্ষাবর্ষের ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীরা, চলুন আমাদের প্রকাশিত সপ্তাহের ব্যবসায় উদ্যোগ অ্যাসাইনমেন্টের উত্তর দেখে নেয়া যাক। আমাদের প্রকাশিত আর্টিকেলের প্রথমে ছবি এবং ছবির নিচে উত্তর প্রদান করছি।

অ্যাসাইনমেন্ট

‘প্রাচীনতম ও জনপ্রিয় ব্যবসায় সংগঠন হিসাবে একমালিকানা ব্যবসায় এখনাে অপ্রতিদ্বন্দ্বী’ বক্তব্যের যথার্থতা নিরূপণ

নির্দেশনা (সংকেত/ধাপ/পরিধি)

  • একমালিকানা ব্যবসায়ের ধারণা।
  • *একমালিকানা ব্যবসায়ের বৈশিষ্ট্য
  • একমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্রসমূহ।
  • একমালিকানা ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তার কারণ

উত্তরঃ

একমালিকানা ব্যবসায়ের ধারণা (Concept of Sole Proprietorship Business):

সাধারণভাবে একজন ব্যক্তির মালিকানায় প্রতিষ্ঠিত, পরিচালিত ও নিয়ন্ত্রিত ব্যবসায়কে একমালিকানা ব্যবসায় বলে। একক মালিকানায় পৃথিবীতে সর্বপ্রথম ব্যবসায় কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। এ জন্য এটিকে সবচেয়ে প্রাচীনতম ব্যবসায় সংগঠন বলা হয়। বর্তমান প্রেক্ষাপটে বলা যায়, মুনাফা অর্জনের লক্ষ্য নিয়ে যখন কোনাে ব্যক্তি নিজ দায়িত্বে মূলধন যােগাড় করে কোনাে ব্যবসা গঠন ও পরিচালনা করে এবং উক্ত ব্যবসায়ে অর্জিত সকল লাভ নিজে ভােগ করে বা ক্ষতি হলে নিজেই তা বহন করে, তখন তাকে একমালিকানা ব্যবসায় বলে। একমালিকানা ব্যবসায় গঠন অত্যন্ত সহজ।

যে কোনাে ব্যক্তি নিজের উদ্যোগে সল্প অর্থ নিয়ে এ জাতীয় কারবার শুরু করতে পারেন। সাধারণত এ জাতীয় ব্যবসায়ের আয়তন ছােট হয়। তবে প্রয়ােজনে মালিক একাধিক কর্মচারী নিয়ােগ করতে পারেন এবং অধিক অর্থও বিনিয়ােগ করতে পারেন। আইনের চোখে একমালিকানা ব্যবসায়ের তেমন কোনাে বাধ্যবাধকতা নেই। গ্রামে-গঞ্জে, হাট-বাজার বা রাস্তার পাশে কিংবা নিজ বাড়িতে যে কেউ ছােট-খাটো ব্যবসা শুরু করতে পারে। তবে শহরে বা পৌরসভা এলাকায় উদ্যোক্তাকে ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করে ব্যবসা আরম্ভ করতে হয়। আমাদের দেশের অধিকাংশ ব্যবসায় সংগঠন একমালিকানার ভিত্তিতে গঠিত। শুধু তাই নয় ইউরােপ ও আমেরিকার প্রায় ৮০% ব্যবসায় এক মালিকানাভিত্তিক।

আমাদের দেশের সাধারণ মুদি দোকান, চায়ের দোকান, সবজি দোকান, অধিকাংশ খুচরা দোকান একক মালিকানার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত। বলে। একক মালিকানায় পৃথিবীতে সর্বপ্রথম ব্যবসায় কার্যক্রম শুরু হয়েছিল। এ জন্য এটিকে সবচেয়ে প্রাচীনতম ব্যবসায় সংগঠন বলা হয়। বর্তমান প্রেক্ষাপটে বলা যায়, মুনাফা অর্জনের লক্ষ্য নিয়ে যখন কোনাে ব্যক্তি নিজ দায়িত্বে মূলধন যােগাড় করে কোনাে ব্যবসা গঠন ও পরিচালনা করে এবং উক্ত ব্যবসায়ে অর্জিত সকল লাভ নিজে ভােগ করে বা ক্ষতি হলে নিজেই তা বহন করে, তখন তাকে একমালিকানা ব্যবসায় বলে। একমালিকানা ব্যবসায় গঠন অত্যন্ত সহজ। যে কোনাে ব্যক্তি নিজের উদ্যোগে স্বল্প অর্থ নিয়ে এ জাতীয় কারবার শুরু করতে পারেন। সাধারণত এ জাতীয় ব্যবসায়ের আয়তন ছােট হয়। তবে প্রয়ােজনে মালিক একাধিক কর্মচারী নিয়ােগ করতে পারেন এবং অধিক অর্থও বিনিয়ােগ করতে পারেন। আইনের চোখে একমালিকানা ব্যবসায়ের তেমন কোনাে বাধ্যবাধকতা নেই।

গ্রামে-গঞ্জে, হাট-বাজার বা রাস্তার পাশে কিংবা নিজ বাড়িতে যে কেউ ছােট-খাটো ব্যবসা শুরু করতে পারে। তবে শহরে বা পৌরসভা এলাকায় উদ্যোক্তাকে ট্রেড লাইসেন্স সংগ্রহ করে ব্যবসা আরম্ভ করতে হয়। আমাদের দেশের অধিকাংশ ব্যবসায় সংগঠন একমালিকানার ভিত্তিতে গঠিত। শুধু তাই নয় ইউরােপ ও আমেরিকার প্রায় ৮০% ব্যবসায় এক মালিকানাভিত্তিক। আমাদের দেশের সাধারণ মুদি দোকান, চায়ের দোকান, সবজি দোকান, অধিকাংশ খুচরা দোকান একক মালিকানার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত।

একমালিকানা ব্যবসায়ের বৈশিষ্ট্য (Characteristics of Sole Proprietorship Business):

একমালিকানা ব্যবসায় হলাে এমন এক ধরনের ব্যবসায় যার উদ্যোক্তা, মালিক, পরিচালক ও অর্থের যােগানদাতা একই ব্যক্তি এবং তিনি নিজেই এককভাবে ব্যবসায়ের সকল ঝুঁকি, দায়, লাভ ও লােকসান বহন করেন। নিম্নে একমালিকানা ব্যবসায়ের বৈশিষ্ট্যগুলাে চিহ্নিত করা হলােএকমালিকানা ব্যবসায়ের মালিক সব সময় একজন ব্যক্তি যিন নিজ উদ্যোগে পুঁজির সংস্থান করেন, ব্যবসায় পরিচালনা করেন ও ঝুঁকি বহন করেন । এ জাতীয় ব্যবসায়ের গঠন বেশ সহজ। আইনগত ঝামেলা না থাকায় যে কেউ ইচ্ছা করলে ও উদ্যোগ নিলে এ ব্যবসায় শুরু করতে পারেন। স্বল্প মূলধন নিয়ে এ জাতীয় ব্যবসায় গঠন করা যায়। মালিক নিজেই এ মূলধন যােগান দেন। সাধারণত নিজস সঞ্চয় ও প্রয়ােজনে বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজন এবং ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে ব্যবসায় পরিচালনা করেন।

• অধিকাংশ ক্ষেত্রেই একমালিকানা ব্যবসায় ক্ষুদ্র আকারের হয়ে থাকে। মূলধনের স্বল্পতা ও একজন ব্যক্তির মালিকানার জন্য এর আয়তন সাধারণত ছােট হয়ে থাকে। একমালিকানা ব্যবসায়ের সকল ঝুঁকি মালিককে এককভাবে বহন করতে হয়।

• আইনের চোখে একমালিকানা ব্যবসায়ের পৃথক কোনাে সত্তা নেই। মালিক ও ব্যবসায় অভিন্ন। এ জাতীয় ব্যবসায়ের সম্পূর্ণ দায়-দায়িত্ব মালিকের। ফলে তার দায় অসীম। প্রয়ােজনে ব্যক্তিগত সম্পত্তি বিক্রয় করে ব্যবসায়ের দায় পরিশােধ করতে হয়। পুরাে ব্যবসায়ের একক মালিকানার জন্য লাভের সবটা মালিক একা ভােগ করেন। আবার লােকসানের সম্মুখীন হলে মালিককেই এককভাগে তা বহন করতে হয়। একমালিকানা ব্যবসায়ের স্থায়িত্ব মালিকের ইচ্ছার উপর নির্ভরশীল। কারণ ব্যবসায় চালু রাখা বা বন্ধ করা মালিকের আগ্রহের উপর নির্ভর করে।

একমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্রসমূহ (Suitable Areas for Sole-proprietorship Business):

একমালিকানা ব্যবসায় প্রাচীনতম ব্যবসায় হিসেবে বিশ্বের অনুন্নত, উন্নয়নশীল ও উন্নত সকল দেশেই স্বীকৃত। প্রাচীনতম ব্যবসায় হলেও বর্তমান বৃহদায়তন ব্যবসায়ের সাথে প্রতিযােগিতা করে এখনও সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্যবসায় হিসেবে টিকে আছে। একমালিকানা ব্যবসায়ে এমন কিছু বৈশিষ্ট্য ও সুবিধা আছে যে কারণে এ জাতীয় ব্যবসায় সকলের নিকট জনপ্রিয়। একমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্রসমূহ বর্ণনা করা হলাে :
১. অনেকে আছেন যাদের হাতে পর্যাপ্ত অর্থ নেই অথচ ব্যবসায় শুরু করতে আগ্রহী। আত্মকর্মসংস্থানে উদ্যোগী এমন হাজার হাজার লােকের জন্য একমালিকানা ব্যবসায় সবচেয়ে উপযুক্ত। যেমন- চায়ের দোকান, ছােট খাবারের দোকান, কুটির শিল্পের দোকান, মৃৎ শিল্পের দোকান।
২.এমন কিছু ব্যবসায় আছে যেগুলাের জন্য বেশি অর্থের প্রয়ােজন পড়ে না। সে জাতীয় ব্যবসায়ের জন্য একমালিকানা ব্যবসায়ই সবচেয়ে বেশি উপযােগী বিবেচিত হয়। যেমন- পানের দোকান, সবজির দোকান।
৩.যে সকল ব্যবসায়ে ঝুঁকি একেবারেই কম সেগুলাের জন্য একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত। কেননা কম আয়ের ব্যক্তিরা সাধারণত ঝুঁকি এড়িয়ে চলতে চান, ফলে তারা এমন ব্যবসায়ই বেশি পছন্দ করেন। যেমন- চালের দোকান, ঔষধের দোকান।
৪. কিছু কিছু ব্যবসায় আছে যেগুলাের প্রদত্ত পণ্য বা সেবার চাহিদা বিশেষ বিশেষ এলাকা বা নির্দিষ্ট শ্রেণির গ্রাহকদের নিকট সীমাবদ্ধ। সে সব পণ্য বা সেবার ক্ষেত্রে একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত। যেমনকুলের সামনে বই-খাতার দোকান, কোনাে শিল্প কারখানার সামনে রেস্টুরেন্ট।
৫. পঁচনশীল জাতীয় পণ্য যেমন ফল-মূল, শাক-সবজি, মাছ-মাংস ইত্যাদির ব্যবসায় সাধারণত একমালিকানা ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকে।
৬. ডাক্তারি, প্রকৌশল ও আইন ব্যবসায়ের মতাে ক্ষুদ্র আকারের পেশাভিত্তিক ব্যবসায় এবং প্রত্যক্ষ সেবাধর্মী ব্যবসায় যেমন লন্ড্রি, সেলুন, বিউটি পার্লার ইত্যাদি সাধারণত একমালিকানার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত হয়ে থাকে।
৭.অনেক পণ্য আছে যেগুলাের চাহিদা ক্রেতাদের পরিবর্তনশীল রুচি, আগ্রহ ও ফ্যাশনের উপর নির্ভরশীল। সে সকল পণ্যের ব্যবসায়ের ক্ষেত্রেও একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত। যেমন-দরজির দোকান।
৮, যে সব ব্যবসায় প্রদত্ত পণ্য-দ্রব্য ও সেবার সাথে ব্যক্তির বা মালিকের নৈপুণ্য, শিল্পকর্ম ও সুনাম জড়িত থাকে সেগুলাের জন্য একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত। যেমন-চিত্রকর্মের দোকান, ছবি তােলার দোকান, স্বর্ণকারের দোকান, ফার্নিচারের দোকান, মিষ্টির দোকান।
৯. কৃষিজাত পণ্য ও সহায়ক পণ্যের ব্যবসার জন্যও একমালিকানা ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত। যেমন- ধান ব্যবসায়, আলু ব্যবসায় ও কাঁচামালের ব্যবসায়।
১০. স্থানীয় বা জাতীয় পর্যায়ের বই, খাতা-পত্র, পত্রিকা ইত্যাদি প্রকাশনা ব্যবসায়ের জন্য একক মালিকানাভিত্তিক ব্যবসায় বেশি উপযুক্ত।
উপরােক্ত বিশ্লেষণ থেকে বােঝা যাচ্ছে যে, ব্যক্তিগত উদ্যোগ, স্বাধীনচেতা মনােভাব, স্বল্প পুঁজি ও স্বল্প শ্রম বিনিয়ােগ করে একমালিকানা ব্যবসায় যে কোনাে সময় যে কোনাে স্থানে শুরু করা যায়। এ ব্যবসায় আইনি জটিলতামুক্ত এবং এতে ঝুঁকিও কম। অন্যদিকে একমালিকানা ব্যবসায় ভােক্তাদের অত্যন্ত নিকটে থেকে তাদের পছন্দ ও রুচি অনুযায়ী পণ্য বা সেবা প্রদান করতে পারে। ফলে প্রাচীন ব্যবসায় সংগঠন হওয়া সত্ত্বেও একমালিকানা ব্যবসায়ের উপযুক্ত ক্ষেত্র যেমন ব্যাপক, তেমনি সকলের নিকট এ ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তাও বেশি। বাাদেশের অর্থনৈতিক, সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক অবস্থা বিবেচনায় একমালিকানা ব্যবসায় সবচেয়ে বেশি উপযােগী। যার কারণে বাংলাদেশের বর্তমান মােট ব্যবসায় সংগঠনের শতকরা আশি ভাগেরও বেশি একমালিকানার ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত। তবে দেশে। নতুন ক্ষেত্র তৈরির লক্ষ্যে যুবসমাজকে একমালিকানা ব্যবসায়ে ৯থান বেকারত্ব দূরীকরণে কর্মসংস্থানের করতে ঋণ পাওয়া সহজ করাসহ আরাে সরকারি সহযােগিতা প্রয়ােজন।

একমালিকানা ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তার কারনঃ

উত্তর: একমালিকানা ব্যবসায়ের জনপ্রিয়তার কারণ নিম্নে বর্ণনা করা হলাে:
১. সহজ গঠনঃ ঠিন করা খুবই সহজ। চুক্তি সম্পাদনে সক্ষম দুই বা ততোধিক ব্যক্তি চুক্তিবদ্ধ হয়ে অংশীদারি ব্যবসায় গঠন করতে পারে। এর জন্য কোন আইনগত বাধ্যবাধকতা নেই।
২. অধিক পুঁজি: এ ব্যবসায়ে একাধিক সদস্য থাকার ফলে এবং সুযােগ থাকায় এক্ষেত্রে অধিক পুঁজি বিনিয়োগ করা যায়।
৩. ঝুঁকি হ্রাস: এ ব্যবসায়ে প্রত্যেক অংশীদারকে ঝুঁকি বহন করতে হয়।ব্যবসায়ের ঝুঁকি একাধিক অংশীদারের মধ্যে বন্টিত হয় বলে একক ঝুঁকি হ্রাস পায়।
৪. দলবদ্ধ প্রচেষ্টা : অংশীদারি ব্যবসায়ে সকল অংশীদারের স্বার্থে এক ও অভিন্ন হওয়ায় সকলেই দলবদ্ধভাবে ব্যবসায়ে সফলতার জন্য কাজ করে। ফলে ব্যবসায়ের উন্নতি ঘটে।

See More: 

এসএসসি 201 হিসাববিজ্ঞান [৮ম সপ্তাহ] অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর। Accounting Assignment SSC 2021

Check Also

৯ম শ্রেণি [৩য় সপ্তাহ] ব্যবসায় উদ্যোগ এসাইনমেন্ট উত্তর 2022। পিডিএফ উত্তর ডাউনলোড করুন এখানে

আজ নবম শ্রেণির 2022 সালের শিক্ষাবর্ষের ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের শিক্ষার্থীদের তৃতীয় সপ্তাহের জন্য নির্ধারিত ব্যবসায় …